৪০ লক্ষ পর্যটন কর্মীর কল্যানে ট্যুরিজম বোর্ড কাজ করবে; জাবেদ আহমেদ

0
330

ঢাকা প্রতিনিধি : করোনা আক্রান্তে গোটা দেশ যখন লকডাউনে, দেশের পর্যটন শিল্প যখন স্থবির, ঠিক তখন অন্ধকারে আলোর ঝলকানির মতো পর্যটন সংশ্লিষ্টদের জন্য নতুন দিগন্ত উম্মোচন করেছেন বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ড। শুরু করেছে কর্মহীন অবস্থায় থাকা ট্যুর অপারেটর ও ট্যুর গাইডদের জন্য অনলাইন প্রশিক্ষণ। ইতোমধ্যে বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ড কুয়াকাটার ট্যুর অপারেটর এবং সিলেট বিভাগের ট্যুর গাইডদের নিয়ে দুই দিনব্যাপী অনলাইন প্রশিক্ষণের আয়োজন করে। এই কর্মসূচী একদিকে যেমন ট্যুরিজমকে এগিয়ে নিতে পেশাগত দক্ষতা বৃদ্ধি পাবে একই সঙ্গে বর্তমানে কর্মহীন ট্যুর অপারেটর ও ট্যুর গাইডগণ আর্থিক সহায়তা পাবেন। পর্যটন কর্মীদের এই দু:সময় এমন একটি কর্মসুচী নেয়ায় ভীষন খুশি অংশগ্রহণকারীরা ।

আজ ২৪ মে, ২০২০ রবিবার বেলা ২.০০ ঘটিকায় ট্যুর অপারেটর এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (টোয়াব) এর সদস্যদের করোনা সংকট থেকে উত্তরণ পেশাগত দক্ষতা বৃদ্ধি সম্পর্কিত ২ দিনব্যাপি অনলাইন প্রশিক্ষণ কর্মশালা শুরু হয়েছে। এই কর্মশালার আনুষ্ঠানিক উদ্ভোধন করেন বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালেয়র মাননীয় প্রতিমন্ত্রী জনাব মো: মাহবুব আলী এমপি। প্রশিক্ষণ কর্মশালার সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ড এর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (অতিরিক্ত সচিব) জনাব জাবেদ আহমেদ। এছাড়াও বিশেষ অতিথি হিসেবে উপিস্থত ছিলেন বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ডের পরিচালক (যুগ্ম সচিব) জনাব আবু তাহের মুহাম্মদ জাবের ও ট্যুর অপারেটর এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (টোয়াব) এর সভাপতি জনাব রাফিউজ্জামান । কর্মশালায় সম্পৃক্ত ছিলেন, ট্যুরিজম বোর্ডের উপপরিচালক, জনাব মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম, সহকারী পরিচালক জনাব বোরহান উদ্দিন, মো: মাজহারুল ইসলাম ও বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ডের অন্যন্য কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দ। কর্মশালায় আলোচক হিসেবেন অংশগ্রহণ করেন, ট্যুর অপারেটর এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (টোয়াব) এর প্রেসিডেন্ট জনাব রাফিউজ্জামান, এবং পরিচালক (অর্থ) জনাব মনিরুজ্জামান মাসুম, বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা জনাব জাবেদ আহমেদ, পরিচালক জনাব আবু তাহের মুহাম্মদ জাবের, উপ-পরিচালক জনাব মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম। এই প্রশিক্ষণে অনলাইনে ঢাকার ৪০ জন ট্যুর অপারেটর অংশ নেয়।

প্রশিক্ষণ কর্মসূচি উদ্বোধনকালে মাননীয় প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমাদেরকে বর্তমানে কঠিন দু:সময়ের ভিতর দিয়ে যাচ্ছি। এ সমস্যা শুধু বাংলাদেশের জন্য নয়, এটি একটি বৈশ্যিক সমস্যা। সারা বিশ্বে এর প্রভাব পড়েছে। করোনা মহামরীর জন্য সবচেয়ে বেশী ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে আমাদের সম্ভাবনাময় পর্যটন শিল্প। তিনি বলেন করোনা পরবর্তীতেকালে বাংলাদেশের পর্যটন খাতকে কিভাবে সামনের দিকে এগিয়ে নেয়া যায় সে বিষয়ে সকলকে একত্রিত হয়ে কাজ করতে হবে, উদ্ভাবন করতে হবে নতুন নতুন উপায়। এর জন্য তিনি প্রাইভেট স্টোকহোল্ডাদের এগিয়ে আসার জন্য এবং নতুন নতুন পদ্ধতি উদ্ভাবন এবং অবলম্বনের জন্য অনুরোধ জানান। তিনি অভিমত প্রকাশ করেন যে, এই মহামারীর মধ্যেও বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ড অনলাইনে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। এ জন্য এর বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা, পরিচালক, সকল কর্মকর্তা/কর্মচারীসহ এবং প্রশিক্ষণ কর্মশালায় প্রশিক্ষনার্থী হিসেবে যারা অংশগ্রহণ করেছেন তাদের ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।

সভাপতির বক্তব্যে বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা জনাব জাবেদ আহমেদ বলেন, এই মহামারী থেকে আমাদের পর্যটন শিল্পের উত্তোরণের জন্য বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ডের কার্যক্রম জোরদার করা হয়েছে। আমাদের সকল স্টেকহোল্ডাগণের সাথে একত্রিত হয়ে বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ড পর্যটন উন্নয়ন এবং পর্যটন শিল্পের সাথে যুক্ত দেশের ৪০ লক্ষ পর্যটন কর্মীর কল্যানের জন্য কাজ করছে।

ট্যুর অপারেটর এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (টোয়াব) এর সভাপতি জনাব রাফিউজ্জামান জানান এটি একটি চমৎকার উদ্যোগ। ট্যুর অপারেটররা বসে না থেকে অন্তত ভবিষ্যতের জন্য প্রশিক্ষণ নিয়ে দক্ষতা বৃদ্ধি করতে পারছে, অপরদিকে আর্থিক ভাবেও সহযোগিতা পাচ্ছে এমন একটি কর্মসূচী হাতে নেয়ায় তিনি ধন্যবাদ জানান বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ডের কর্মকর্তাগণকে।

৪০ লক্ষ পর্যটন কর্মীর কল্যানে ট্যুরিজম বোর্ড কাজ করবে; জাবেদ আহমেদ

আপনার কোন প্রশ্ন থাকলে বা এই বিষয়ে কোন কিছু জানানোর থাকলে নীচের মন্তব্য বিভাগে লিখতে ভুলবেন না । আপনার ভ্রমণ পিয়াশি বন্ধুদের সাথে নিবন্ধটি শেয়ার করে নিন যাতে তারাও জানতে পারে ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here