বাংলাদেশ থেকে ইন্ডিয়া যাওয়ার সকল ট্রেনের তথ্য ২০২২

0
66

ভারতের বাংলাদেশের মধ্যে চলাচলের অপেক্ষায় থাকা তিনটি ট্রেনের বিস্তারিত নিচে দেয়া হলোঃ

মৈত্রী এক্সপ্রেস (ঢাকা-কোলকাতা-ঢাকা): ভারত-বাংলাদেশের মধ্যে সবচেয়ে জনপ্রিয় ট্রেন মৈত্রী এক্সপ্রেস। ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট স্টেশন থেকে কোলকাতা স্টেশন (চিতপুরের) মধ্যে চলাচল করে এ ট্রেন। ট্রেনের জন্য বাই ট্রেন গেদে পোর্ট নির্বাচন করতে হয়। ঢাকায় ক্যান্টনমেন্ট স্টেশনে ও কলকাতার কোলকাতা স্টেশনে ইমিগ্রেশন সম্পন্ন হয়। ভিসা পাওয়ার আগ পর্যন্ত ট্রেনের টিকেট কাটা যাবেনা। টিকেট পাওয়া যায় বাংলাদেশে কমলাপুর ও চট্টগ্রাম রেলস্টেশনে এবং ভারতের ফেয়ারলী প্যালেস ও কোলকাতা স্টেশনে।

ভাড়া: এসি চেয়ার/স্নিগ্ধা ২,৫০০ টাকা ও এসি সিট/বার্থ ৩,৪০০ টাকা। এর মধ্যে ট্রাভেল ট্যাক্স অন্তর্ভূক্ত। ১-৫ বছরের শিশুদের ৫০% ভাড়া লাগবে। সময়সূচী: ঢাকা থেকে ছাড়ে সকাল ৮:১৫ মিনিটে, কোলকাতা থেকে ছাড়ে সকাল ৭:১০ মিনিটে। সাপ্তাহিক বন্ধ বৃহস্পতিবার। ঢাকা হতে ছাড়ে প্রতি শুক্রবার, শনিবার, রবিবার, মঙ্গলবার ও বুধবার। কোলকাতা হতে ছাড়ে প্রতি শুক্রবার, শনিবার, সোমবার, মঙ্গলবার ও বুধবার। যাওয়ার টিকে কাটা যাবে ২৯ দিন আগে আর আসার টিকেট চার দিন আগে কাটা যাবে।


বন্ধন এক্সপ্রেস (খুলনা-কলকাতা-খুলনা): খুলনা থেকে কলকাতা চলাচল করে বন্ধন এক্সপ্রেস। খুলনা স্টেশন থেকে কলকাতা স্টেশন (চিতপুরের) মধ্যে চলাচল করে এ ট্রেন। ট্রেনের জন্য বাই ট্রেন পেট্রোপোল পোর্ট নির্বাচন করতে হয়। বাংলাদেশের অংশে বেনোপোল স্টেশনে ও ভারতের অংশে কলকাতার কলকাতা স্টেশনে ইমিগ্রেশন সম্পন্ন হয়। ভিসা পাওয়ার আগ পর্যন্ত ট্রেনের টিকেট কাটা যাবেনা। টিকেট পাওয়া যায় খুলনা রেলস্টেশনে এবং ভারতের ফেয়ারলী প্যালেস ও কলকাতা স্টেশনে।

ভাড়া: এসি চেয়ার/স্নিগ্ধা ১,৫০০ টাকা ও এসি সিট/বার্থ ২,০০০ টাকা। এর মধ্যে ট্রাভেল ট্যাক্স অন্তর্ভূক্ত। সময়সূচী: খুলনা থেকে ছাড়ে দুপুর ১:৩০ মিনিটে, কলকাতা থেকে ছাড়ে সকাল ৭:১০ মিনিটে। খুলনা হতে ছাড়ে প্রতি রবিবার ও বৃহস্পতিবার। কোলকাতা হতে ছাড়ে প্রতি রবিবার ও বৃহস্পতিবার।

মিতালী এক্সপ্রেস (ঢাকা-নিউ জলপাইগুড়ি-ঢাকা): মূলত দার্জিলিং-সিকিমের জন্য জনপ্রিয় পর্যটন গন্তব্যের চালু হতে যাচ্ছে এ ট্রেন। ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট স্টেশন থেকে নিউ জলপাইগুড়ির মধ্যে চলাচল কবে এ ট্রেন। ট্রেনের জন্য বাই ট্রেন নিউ জলপাইগুড়ি পোর্ট নির্বাচন করতে হবে। ঢাকায় ক্যান্টনমেন্ট স্টেশনে ও শিলিগুড়ির নিউ জলপাইগুড়ি স্টেশনে ইমিগ্রেশন সম্পন্ন হবে। ভিসা পাওয়ার আগ পর্যন্ত ট্রেনের টিকেট কাটা যাবেনা। টিকেট পাওয়া যায় বাংলাদেশে কমলাপুর ও চট্টগ্রাম রেলস্টেশনে এবং ভারতের ফেয়ারলী প্যালেস ও নিউ জলপাইগুড়ি স্টেশনে।

ভাড়া: এসি চেয়ার ২,৭০৫ টাকা ও এসি সিট ৩,৮০৫ টাকা ও এসি বার্থ ৪,৯০৫ টাকা। এর মধ্যে ট্রাভেল ট্যাক্স অন্তর্ভূক্ত। সময়সূচী: ঢাকা থেকে ছাড়ে রাত ৯:৫০ মিনিটে, নিউ জলপাইগুড়ি থেকে ছাড়ে রাত ১১:৪৫ মিনিটে (ভারতীয় সময়)। নিউজলপাইগুড়ি ছাড়বে- রবিবার ও বুধবার। ঢকা ক্যান্টনমেন্ট ছাড়বে- সোমবার ও বৃহস্পতিবার।

আপনার কোন প্রশ্ন থাকলে বা এই বিষয়ে কোন কিছু জানানোর থাকলে নীচের মন্তব্য বিভাগে লিখতে ভুলবেন না । আপনার ভ্রমণ পিয়াশি বন্ধুদের সাথে নিবন্ধটি শেয়ার করে নিন যাতে তারাও জানতে পারে ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here