ঘাগুটিয়ার পদ্মবিল | ব্রাহ্মণবাড়িয়া

0
1593

সংক্ষিপ্ত বিবরনঃ

ব্রাহ্মণবাড়িয়া আখাউড়া উপজেলার ত্রিপুরা সীমান্তবর্তী পদ্মবিল সেজেছে শরতের অপরূপ রূপে। পদ্ম বিলের( Ghagutia Poddo Ful ) নয়নাভিরাম দৃশ্য প্রকৃতিপ্রেমীদের মুগ্ধ করছে। প্রত্যন্ত এলাকা হলেও পদ্ম ফুলের শোভা দেখতে নিতে প্রতিদিন জেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে বিলের তীরে ভিড় করছেন প্রকৃতিপ্রেমীরা।

স্থানীয় বাসিন্দা ইউনুছ মিয়া জানান, ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহর থেকে প্রায় ৩৫ কিলোমিটার দূরে আখাউড়া উপজেলার ত্রিপুরা সীমান্ত ঘেঁষা ঘাগুটিয়া পদ্মবিল। সিমান্তের পশ্চিমপাড় বাংলাদেশের আখাউড়া-কসবা আর পূর্ব প্রান্তে উত্তর-পূর্ব ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের আমতলী থানার মাধবপুর গ্রাম। এরই মাঝ খানে পদ্ম বিল।

তিনি বলেন, শত একর বিল জুড়ে জলে ভাসছে পদ্ম। কেউ আসেন সৌন্দর্য উপভোগ করতে কেউবা আসছেন ছবি তুলতে। আবার অনেকে ডিঙ্গি নৌকায় চড়ে গিয়ে তুলে আনছেন পদ্ম। এ যেন এক অন্যরকম উন্মাদনা পেয়ে বসেছে। প্রকৃতিপ্রেমীদের একজন সোমাইয়া আক্তার রিতু। তিনি বলেন, কোন ক্রমেই প্রকৃতির নয়নাভিরাম দৃশ্য যেন মলিন এবং শ্রীহীন না হয়। স্থানীয় জনপ্রতিনিধি মনিয়ন্দ ইউনিয়ন পরিষদের ৫ নং ওয়ার্ডের সাবেক মেম্বার মো. আব্দুল্লাহ্ জানান ২০১৪ সালে একটি বেসরকারি সংস্থার গবেষকেরা এই পদ্ম বিল থেকে ফুলের মূল নিয়ে অন্যস্থানে প্রজননের চেষ্টা করেছিল। কিন্তু পরিবেশ অনকূলে না থাকায় সেই ফুলের প্রজনন শেষ পর্যন্ত হয়নি বলে জানতে পেরেছি। 

শিশু-কিশোরেরা ডিঙি নৌকায় করে ফুল তুলে আনছে। ফুটন্ত ফুলের ভেতর থাকা ফল খায় শিশুরা। আবার এই ফুল চার থেকে পাঁচ টাকায় বিক্রিও করে তারা। প্রতিদিন প্রায় ৪০০-৫০০ ফুল তোলে শিশুরা। পদ্ম প্রেমী আখাউড়া পৌরসভার মেয়র তাকজিল খলিফা বলেন, ‘দৈনন্দিন কাজের ফাঁকে মন সময় পেলেই পদ্ম বিলের পাড়ে ঘুরে আসি।’আখাউড়ার শ্রীশ্রী রাধামাধব আখড়ার পুরোহিত বিমল চক্রবর্তী বলেন, ‘দেবী দুর্গার পূজা শুরু হয় ষষ্ঠীতে বোধনের মাধ্যমে। অষ্টমী তিথিতে ১০৮টি জলপদ্ম দিয়ে দেবীর পূজা অর্চনা করা হয়। পদ্মে দেবী দুর্গা, লক্ষী-নারায়ণসহ অন্য দেবদেবীরাও তুষ্ট হন।’

কিভাবে যাবেনঃ

ব্রাহ্মনবাড়িয়ায় পৌছানোর পর লোকাল বাসে চড়ে এই বিলে যাওয়া যায়।

বাংলাদেশের পূর্ব মধ্যাঞ্চলে চট্রগ্রাম বিভাগের অধীনের একটি জেলার নাম ব্রাহ্মণবাড়িয়া। ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার উত্তরে কিশোরগঞ্জ জেলা ও হবিগঞ্জ জেলা, দক্ষিনে কুমিল্লা জেলা, পূর্বে হবিগঞ্জ জেলা ও ভারতের রাজ্য এবং পশ্চিমে মেঘনা নদী, কিশোরগঞ্জ জেলা, নরসিংদী জেলা এবং নারায়ণগঞ্জ জেলা অবস্থিত। ঢাকার সাথে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার সরাসরি সড়ক যোগাযোগ থাকায় আপনি বাসে করে সরাসরি এই জেলায় পৌছাতে পারবেন। ঢাকা ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার মধ্যে চলাচলকারী বাসগুলোর মধ্যে রয়েছেঃ
১। সোহাগ পরিবহন, যোগাযোগঃ ০৪৪৭-৬০০০৫৬১
২। তিশা পরিবহন, যোগাযোগঃ ০১৯১৫৭২৮৭৪৫
৩। তিতাস পরিবহন, যোগাযোগঃ ০১৬৭৫৩৮৯৭৭৬

আপনার কোন প্রশ্ন থাকলে বা এই বিষয়ে কোন কিছু জানানোর থাকলে নীচের মন্তব্য বিভাগে লিখতে ভুলবেন না । আপনার ভ্রমণ পিয়াশি বন্ধুদের সাথে নিবন্ধটি শেয়ার করে নিন যাতে তারাও জানতে পারে ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here