ছোট কাটরা | ঢাকা

0
1261

সংক্ষিপ্ত বিবরণঃ

ঢাকার বড় কাটরা হতে প্রায় ১৮৩ মি. পূর্ব দিকে বুড়িগঙ্গা নদীর তীরে অবস্থিত( choto katra dhaka )। এটি নওয়াব শায়েস্তা খান ১৬৬৪ খ্রিস্টাব্দে নির্মাণ করেন। বড় কাটরা যে উদ্দেশ্যে নির্মাণ করা হয়েছিল, প্রায় সে উদ্দেশ্যেই ছোট কাটরা নির্মিত হয়েছিল। পরিকল্পনায় ও নির্মাণ কৌশলে ছোট কাটরা অবিকল বড় কাটরার মতো। কিন্তু আকারে ছোট। আয়তাকৃতির ছোট কাটরার পরিমাপ বাইর থেকে ১০১.২০ মি/ ৯২.০৫ এবং ভেতরে ৮১.০৭ মি/ ৬৯.১৯মি। এর বাইরের প্রাচীর ০.৯১ মি থেকে ১মি পুরু এবং এর প্রতিরক্ষা বুরুজের দেওয়াল যেখানে সবচেয়ে পুরু সেখানে হলো ১.২২ মিটার। ছোট কাটরার উত্তর ও দক্ষিণে রয়েছে দুটি প্রবেশপথ। এর মধ্যে দক্ষিণেরটি প্রধান প্রবেশপথ।

ছোট কাটরার খিলানসমূহ তিনভাঁজ বিশিষ্ট। মিনারগুলি মজবুত এবং অন্যান্য মুগল মিনারের তুলনায় মোটা ও বপ্রবিহীন। প্রাসাদের সিঁড়ি ও মেঝে কাঠ দিয়ে তৈরী। কাঠের সিঁড়িগুলি ছিল বেশ চওড়া। একতলায় একটি কক্ষকে বিভক্ত করা হয়েছে আড়াআড়িভাবে-একটি লম্বা ও অপরটি চওড়া দ্বিতল অত্যুচ্চ প্রবেশপথ দুট সংস্কার করা হলেও এখনও প্রবেশপথ দুটি চিত্তাকর্ষক। উন্মুক্ত প্রাঙ্গণবেষ্টিত চারপাশের ভবনাদি বহুবার নবায়ন, পুনর্নির্মাণ ও সংস্কার করা হয়েছে। আদি ভবনে অনেক আধুনিক সম্প্রসারণ হয়েছে। নদীর দিকে তিনতলা বিশিষ্ট প্রবেশপথে কিছু ঔপনিবেশিক বৈশিষ্ট্য লক্ষণীয়। ত্রয়ী জানালায় ও সুউচ্চ পার্শ্ব বুরুজে পরবর্তী সংস্কারের সময় ঔপনিবেশিক প্রভাবের প্রতিফলন ঘটেছে।

বিবেচনাহীন পরিবর্তন ও অনাকাঙ্ক্ষিত নবায়ন এবং প্রাঙ্গণে দোকান-পসারের ঘেষাঘেষিতে এর পূর্ব আকৃতি ও সৌন্দর্য বিনষ্ট হয়ে গেছে।

বর্তমান অবস্থাঃ
বর্তমানে ছোট কাটরা বলতে কিছুই বাকি নেই, শুধু একটি ভাঙা ইমারত ছাড়া। যা শুধু বিশাল তোরণের মতো সরু গলির উপর দাঁড়িয়ে আছে। চারদিকে অসংখ্য দোকান এমনভাবে ঘিরে ধরেছে যে দেখে বোঝার উপায় নেই, এখানে মোগল আমলে এমন একটি স্থাপত্য ছিল।

তবে বড় কাটরা এবং ছোট কাটরা নামে সড়কের নামকরণ করা হয়েছে। তাই স্থাপনা না থাকলেও সড়কের নামের মাধ্যমে বেঁচে আছে মুঘল আমলের এই ঐতিহাসিক স্থাপনা দুটির নাম।

আপনার কোন প্রশ্ন থাকলে বা এই বিষয়ে কোন কিছু জানানোর থাকলে নীচের মন্তব্য বিভাগে লিখতে ভুলবেন না । আপনার ভ্রমণ পিয়াশি বন্ধুদের সাথে নিবন্ধটি শেয়ার করে নিন যাতে তারাও জানতে পারে ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here