মাধবপুর লেক | শ্রীমঙ্গল

0
1201
madhabpur lake

সংক্ষিপ্ত বিবরণঃ

মাধবপুর হ্রদ( madhabpur lake ) সিলেটের মৌলভীবাজার জেলার কমলগঞ্জ উপজেলায় অবস্থিত একটি কৃত্রিম জলাধার। বাংলাদেশের পর্যটন আকর্ষনগুলোর মধ্যে এই হ্রদটি অন্যতম।

এই হ্রদটি বাংলাদেশের উত্তর-পূর্ব কোণে অবস্থিত সিলেট বিভাগের মৌলভীবাজার জেলার কমলগঞ্জ উপজেলার মাধবপুর ইউনিয়নের পাত্রখলা এলাকায়। কমলগঞ্জ উপজেলা সদরের ৫ কিলোমিটার দূরত্বের মধ্যে ন্যাশনাল টি কোম্পানি (এনটিসি)-র সত্ত্বাধীন মাধবপুর চা-বাগানের ১১ নম্বর সেকশনে (পাত্রখলা) এর অবস্থান। এই স্থানটি জেলা শহর মৌলভীবাজার থেকে ৪০ কিলোমিটার দক্ষিণে ও বাংলাদেশের অন্যতম প্রধান পর্যটন কেন্দ্র শ্রীমঙ্গল থেকে ১০ কিলোমিটার পূর্বে।

চা বাগানে চাষের ও অন্যান্য বিভিন্ন কারণে ব্যবহারের জন্য প্রচুর পানির প্রয়োজন হয় বলে পাবত্য অঞ্চলের বৃষ্টিবহুল এলাকাগুলোই চা চাষের জন্য সর্ব্বোৎকৃষ্ট। কিন্তু, এসব অঞ্চলে বৃষ্টির পরিমাণ অধিক হলেও ঢালু ভূমির কারণে পানি অধিক সময় অবস্থান করেনা বিধায় পানির প্রয়োজনে বাগান কর্তৃপক্ষ একাধিক জলাধার তৈরী করেন, যা প্রায় প্রতিটি চা বাগানের ক্ষেত্রেই অতি স্বাভাবিক ব্যাপার এবং স্থানীয় চা শ্রমিকরা এসব হ্রদকে “ডাম্প” বলে থাকে।। এরই ধারাবাহিকতায়, মাধবপুর চা বাগান কর্তৃপক্ষ ১৯৬৫ সালে বাগানের মধ্যস্থিত তিনটি টিলাকে বাঁধ দিয়ে পানি জমিয়ে রেখে গড়ে তোলেন মাধবপুর হ্রদ।

কিভাবে যাবেনঃ

এই লেকটি ঢাকা থেকে প্রায় ২০৭ কিলোমিটার এবং মৌলভীবাজার থেকে প্রায় ৩৯.৩ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। ঢাকা থেকে সোহাগ পরিবহন, হানিফ পরিবহন, শ্যামলী পরিবহন, টি আর ট্র্যাভেলস সহ বিভিন্ন বাস শ্রীমঙ্গলের পথে চলাচল করে। এছাড়া ঢাকা থেকে কালিনী এক্সপ্রেস, পারাবত এক্সপ্রেস, জয়ন্তিকা এক্সপ্রেস এবং উপবন এক্সপ্রেস ট্রেনগুলো সিলেটে যাবার পথে শ্রীমঙ্গলে যাত্রাবিরতি করে। এছাড়া আকাশপথে ঢাকা থেকে সিলেটে পৌঁছে তারপর শ্রীমঙ্গলে যেতে পারেন আপনি।

শ্রীমঙ্গলে পৌঁছে আপনি সিএনজি অটোরিকশা অথবা বাসে করে শ্রীমঙ্গল-ভানুগাছ সড়ক ধরে এই চা বাগানে পৌছাতে পারেন। এছাড়া আপনি ঢাকা থেকে সিলেটে পৌঁছে তারপর এখানে আসতে পারেন। সিলেট থেকে ৯৪.২ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত এই চা বাগানে আপনি বাসে করে আসতে পারেন।

কোথায় থাকবেনঃ

শ্রীমঙ্গলে থাকার যথেষ্ট ভালো ব্যবস্থা রয়েছে। আপনি যেমন রিসোর্টে থাকতে পারবেন তেমনি থাকতে পারবেন হোটেলে বা গেস্ট হাউজে। হোটেল ভাড়া শুরু ৬০০ টাকা থেকে।

আপনার কোন প্রশ্ন থাকলে বা এই বিষয়ে কোন কিছু জানানোর থাকলে নীচের মন্তব্য বিভাগে লিখতে ভুলবেন না । আপনার ভ্রমণ পিয়াশি বন্ধুদের সাথে নিবন্ধটি শেয়ার করে নিন যাতে তারাও জানতে পারে ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here